শনিবার ১২ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ই-পেপার   শনিবার ১২ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

৪০ বছর ধরে মাত্র ১০ টাকায় সেবা দিচ্ছেন ডাক্তার এবাদুল্লাহ
প্রকাশ: ৩০ মে, ২০২১, ১০:৪৩ অপরাহ্ণ |
অনলাইন সংস্করণ

৪০ বছর ধরে মাত্র ১০ টাকায় সেবা দিচ্ছেন ডাক্তার এবাদুল্লাহ
নিউজ ডেস্কঃ ‘অনেক গরীব রোগী আছেন যারা ফি’র ভয়ে ডাক্তারের কাছে আসেন না। আমি অন্তত তাঁদের ফি’র বিষয়টা লাঘব করতে পারি, এটাই আমার সার্থকতা।’ কথাগুলো একজন এমবিবিএস ডাক্তারের। তিনি মামুলি কোনো ডাক্তার নন। সাতক্ষীরা জেলার সাবেক সিভিল সার্জন ডা. মো. এবাদুল্লাহ। দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে অসহায় গরীব রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। বিস্ময়কর হলেও সত্যি, এই যুগেও রোগী প্রতি তিনি ফি নেন মাত্র ১০ টাকা! এজন্য এলাকায় তিনি পরিচিত ‘গরীবের ডাক্তার’ হিসেবে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় এবাদুল্লাহ টগবগে তরুণ। পড়েন রাজশাহী মেডিকেল কলেজে। দেশের টানে ঝাঁপিয়ে পড়লেন যুদ্ধে। দেশ স্বাধীন করে ফেরার পর আবার পড়াশুনায় মন দেন। এমবিবিএস পাস করে চিকিৎসক হিসেবে যোগ দেন রাজশাহী মেডিকেলেই। পরে বদলি হয়ে চলে যান নিজ জেলা সাতক্ষীরায়। ২০১০ সালে সেখানকার সিভিল সার্জন হিসেবে অবসরে যান। এক সময় তিনি রোগী দেখতেন মাত্র ৫ টাকায়। অবসরের পর ফি বাড়িয়ে করেছেন ১০ টাকা। তাঁর রোগীদের অধিকাংশই গরীব। তবে চিকিৎসক হিসেবে তাঁর সুনামের কারণে মধ্যবিত্ত কিংবা ধনীদের অনেকেই আসেন তাঁর কাছে। সাতক্ষীরা শহরের প্রাণকেন্দ্র পাকাপুলের নওয়াব ক্লিনিকে রোগীদের ভীড় দেখলেই আঁচ করা যায় গরীবের ডাক্তার এবাদুল্লাহ’র জনপ্রিয়তা। এক রোগীর স্বজন বলেন, ডাক্তার সাহেব খুব যত্ন সহকারে রোগী দেখেন। রোগীকে পাশে বসিয়ে খুব সুন্দরভাবে কথা বলেন। রোগীর মনের কষ্টও তিনি শোনেন। আরেকজন বলেন, উনি গরীবের বন্ধু। সাতক্ষীরার বড় বড় ডাক্তাররা কমপক্ষে ৫০০ টাকা ফি নেন। কিন্তু ডাক্তার এবাদুল্লাহ নেন মাত্র ১০ টাকা। প্রতিদিন একশ’ থেকে দেড়শ’ রোগী দেখেন গরীবের অক্লান্ত এই সেবক। শুধু সাতক্ষীরাই নয়, আশেপাশের জেলাগুলো থেকেও প্রতিদিন অসংখ্য রোগী আসেন ডা. এবাদুল্লাহ’র কাছে। স্থানীয় এক স্কুল শিক্ষিকা বলেন, এই মহানুভবতা এই যুগে কোথাও মিলবে? এটা তো ভাবাই যায় না। আমার আব্বা-আম্মা যখন উনার কাছে আসতেন তখন ফি ছিলো ৫ টাকা, এখন আমরা ফি দেই মাত্র ১০ টাকা। চিকিৎসার চেয়ে উনার মহানুভবতা বড় বিষয়। উনার দোয়া নেওয়ার জন্যও বার বার এখানে আসি। ডাক্তার এবাদুল্লাহর ক্লিনিকের এক কর্মী বলেন, এখানে কাজ করতে কোনো সমস্যা হয় না। আমাদের স্যারের মতো মানুষে হয় না। উনি রোগীদের যেমন ভালোবাসেন, কর্মচারীদেরও তেমন ভালোবাসেন। উনি যে এই স্বল্প টাকা নেন তা থেকে উনার বাসায় কিছুই যায় না কিন্তু কর্মচারীদের দিকে খেয়াল রাখেন। মানুষের সেবা করতে গিয়ে পরিবারের প্রতিও ঠিকমতো খেলায় রাখতে পারেননি। নামমাত্র ফি নেওয়ায় আর্থিক সচ্ছলতাও দিতে পারেননি সন্তানদের। তা নিয়ে আক্ষেপ নেই তাঁদের, বরং বাবার এই মহানুভবতায় গর্বিত তাঁরা। ডা. এবাদুল্লাহ’র ছেলে নাদিম মোস্তফা বলেন, বাবা সকালে খেয়ে বাসা থেকে বের হয়ে যেতেনে, বিকালে ফিরে অপেক্ষায় থাকা রোগীদের দেখতেন। উনি ঠিকমতো দুপুরে খেতেও পারতেন না। আমরাও চাই, আমাদের বাবা এভাবে মানুষকে সেবা দিয়ে যাক। একজন এমবিবিএস ডাক্তার হয়েও গত ৪০ বছর ধরে ডা. এবাদুল্লাহ যেভাবে মানুষকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তা সত্যিই বিরল। নিজের সামাজিক দায়িত্ব তিনি নিষ্ঠার সংগে পালন করে গেছেন। তাঁর কাছ থেকে শেখার আছে অনেক কিছু, বলছেন জেলার বর্তমান সিভিল সার্জন ডা. হুসাইন শাফায়েত। তিনি বলেন, এটা তো কোনো টাকাই না; টোকেন মাত্র। ১০ টাকা নিয়ে একটা প্রেসক্রিপশন করে দেওয়া অত্যন্ত প্রশংসনীয় কাজ। উনি উনার সামাজিক দায়িত্ব অত্যন্ত আন্তরিকতার সংগে পালন করে যাচ্ছেন। তাঁর থেকে আমাদের সকলেরই অনেক কিছু শেখার আছে। অর্থের লোভ কিংবা চাকচিক্যের জীবন টানে না বীর মুক্তিযোদ্ধা এই চিকিৎসককে। তাঁর লোভ একটাই, অসহায় রোগীর মুখে হাসি ফোটানো এবং তাঁদের ভালোবাসা পাওয়া। ডা. এবাদুল্লাহ বলেন, ছোট বেলায় আমি দেখেছি, কলেরা-বসন্তে গ্রামের বহু মানুষ মারা যেতো। তাদের চিকিৎসা দেওয়ার কেউ ছিলো না। আমি সাতক্ষীরা শহরে যখন চিকিৎসা আরম্ভ করি তখন এখানে চারজন মাত্র ডাক্তার ছিলো। আমি সারাদিন রোগী দেখেছি, অনেক রোগীর সেবা দিয়েছি। যখন একজন রোগী যন্ত্রণায় ছটফট করে তখন আমি এবং আমার সহকর্মীরা তাঁকে সেবা দিয়ে সুস্থ করতে পারলেই আমার খুব ভালো লাগে। ডা. এবাদুল্লাহ বয়স এখন ৭০ বছর। সম্প্রতি করোনা জয় করে ফিরেছেন। শরীরে আগের মতো জোর পান না। তবু মনের জোর এবং সেবার ব্রত নিয়ে কাজ করে চলেছেন। এখন তাঁর একটাই চাওয়া, তিনি না থাকলেও যেন তাঁর ক্লিনিকে এই স্বল্প খরচে চিকিৎসা চালু থাকে।




সর্বশেষ সংবাদ

পুরোন সংবাদ খুজুন
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  

সর্বাধিক পঠিত

প্রকাশক: সৈয়দ এমরান আলী রিপন

সম্পাদক: রোমান চৌধুরী

মোবাইলঃ ০১৭১১৯৫৭২৬৩ / 09639298200

অফিস : সৈয়দ মহল, জানুকি সিং রোড,কাউনিয়া,বরিশাল

ই-মেইলঃ barisalpress247@gmail.com

Design & Developed by
  নির্দিষ্ট কোন মার্কা বা প্রার্থী নয়; জনগণ যাকে ভোট দিবেন, তিনিই নির্বাচিত হবেন   করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৯, নতুন আক্রান্ত ১,৬৩৭   ক্ষমতার পাগল বিএনপি : ওবায়দুল কাদের   তিন উপনির্বাচনে নৌকার মাঝি হলেন যারা   বাড়ানো হলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি   বরিশালে নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সভা অনুষ্ঠিত   সাগরে লঘুচাপ, আগামী ৩ দিনে বাড়তে পারে বৃষ্টি   চট্টগ্রামে একদিনে শনাক্ত ১৫৮   ‘সম্মিলিত প্রচেষ্টায় শিশুশ্রম নিরসন সম্ভব’:প্রধানমন্ত্রী   বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস আজ   “উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে শিশুর সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিতের বিকল্প নেই”:রাষ্ট্রপতি   কুষ্টিয়া পৌর এলাকায় কঠোর বিধি নিষেধ   নগরীতে মসজিদে ইমামের বক্তব্যে মুসল্লিদের মাঝে সংঘর্ষ, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান লাঞ্চিত   বরিশালে উপজেলা আ’লীগের উদ্যোগে শেখ হাসিনা’র কারামুক্তি দিবস পালন   দেশে চার মাসে বজ্রপাতে ১৭৭ জনের মৃত্যু   অশ্রু সিক্ত নয়নে সমাজ সেবক বাচ্চু তালুকদারকে শেষ বিদায়   ‘লাথি মেরে স্টাম্প ভাঙলেন সাকিব’ কী ঘটেছিল মাঠে   পাকিস্তানের পাঞ্জাবে টিকা না নিলে বন্ধ হবে ফোনের সিম   ২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত , বাড়ল আবেদনের সময়   গৌরনদীতে সাংবাদিক পিতার মৃত্যুতে বিভিন্য মহলের শোক প্রকাশ
error: কপি করা থেকে বিরত থাকুন !!