শনিবার ১২ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ই-পেপার   শনিবার ১২ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রপ্তানি না করে রপ্তানি দেখিয়ে নগদ সহায়তা তুলে নিচ্ছে একটি চক্র
প্রকাশ: ৯ মে, ২০২১, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ |
অনলাইন সংস্করণ

রপ্তানি না করে রপ্তানি দেখিয়ে নগদ সহায়তা তুলে নিচ্ছে একটি চক্র
নিউজ ডেস্কঃ রপ্তানিতে সক্ষমতা বাড়াতে সরকার বেশকিছু পণ্যে নগদ সহায়তা বা ক্যাশ ইনসেনটিভ দিয়ে আসছে। এজন্য প্রতি বছর বাজেটে বিপুল অঙ্কের বরাদ্দ রাখা হয়। এই নগদ সহায়তা ১ শতাংশ থেকে শুরু করে ২০ শতাংশ পর্যন্ত। তবে নগদ সহায়তা পেতে অনেকেই প্রতারণার আশ্রয় নিচ্ছেন। পণ্য রপ্তানি না করে রপ্তানি দেখিয়ে নগদ সহায়তার টাকা উঠিয়ে নিচ্ছেন। আবার কম হারের কিংবা নগদ সহায়তার আওতা বহির্ভূত পণ্য রপ্তানি করে বেশি হারের পণ্য দেখাচ্ছেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে একই পণ্য কম রপ্তানি করে বেশি দেখিয়েও কারসাজির মাধ্যমে নগদ সহায়তার অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে কেউ কেউ। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) শুল্ক বিভাগের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, রপ্তানির ক্ষেত্রে সম্প্রতি এ ধরনের বেশকিছু কারসাজি ধরা পড়েছে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউজে। এর বাইরে ঢাকা কাস্টমস হাউজসহ অন্যান্য কাস্টমস হাউজেও এ ধরনের কারসাজি ধরা পড়ে। এর পর নড়েচড়ে বসেছে সংশ্লিষ্ট বিভাগ। এ ধরনের কারসাজি রোধ করতে পণ্য চালান পরীক্ষায় আরো সতর্ক হতে কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিয়েছে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউজ। বিশেষত বাড়তি নগদ সহায়তার সম্পৃক্ততা রয়েছে, এমন পণ্য চালান এবং অপেক্ষাকৃত ঝুঁকিপূর্ণ পণ্য চালান কায়িক পরীক্ষার মাধ্যমে সঠিকতা যাচাইয়ের নির্দেশনা দিয়েছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজ কর্তৃপক্ষ। একই সঙ্গে বন্দরের বাইরে অফডকে পণ্য চালানের সংখ্যা ও অফডক কর্তৃপক্ষের কাছে রক্ষিত তথ্য যাচাই করার নির্দেশনাও দেওয়া হয়। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজ সূত্র জানিয়েছে, সম্প্রতি এ ধরনের বেশকিছু জালিয়াতি ধরা পড়ার পর সতর্ক হয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের কমিশনার মো. ফখরুল আলম বলেন, গত বেশ কিছু দিন ধরে নগদ সহায়তা পাওয়ার জন্য কিছু রপ্তানি পণ্যে অনিয়মের চিত্র পাওয়া গেছে। বর্তমানে ৩৭টি শ্রেণির ৪৭ ধরনের পণ্য বিভিন্ন হারে প্রণোদনা পায়। এর মধ্যে কয়েকটি পণ্য ২০ শতাংশ, কিছু পণ্য ১৫ শতাংশ ও ১০ শতাংশ হারে প্রণোদনা পায়। আবার কিছু পণ্য ১ থেকে ৯ শতাংশ হারে প্রণোদনা পায়। চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে রপ্তানি খাতে প্রণোদনা প্রদানের লক্ষ্যে বরাদ্দ রয়েছে ৭ হাজার ৩২৫ কোটি টাকা। আর ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৩৭ ধরনের পণ্য রপ্তানির জন্য নগদ সহায়তা হিসেবে বরাদ্দ ছিল ৬ হাজার ৮২৫ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানিয়েছে, রপ্তানির ক্ষেত্রে নগদ সহায়তা বেশি হারে পায় খাদ্য ও সবজিজাতীয় পণ্য রপ্তানিতে। এসব পণ্যে নগদ সহায়তা ১০ থেকে ২০ শতাংশ। জালিয়াত চক্র রপ্তানির এ অর্থ হাতিয়ে নিতে অন্য পণ্য রপ্তানি করে এসব পণ্য হিসেবে দেখাচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে বলেন, সবজি, খাদ্যদ্রব্য ও মশলাজাতীয় পণ্য রপ্তানিতে সর্বোচ্চ নগদ সহায়তা দেয় সরকার। দেখা গেল, অন্য পণ্য (যে পণ্য সহায়তার তালিকায় নেই কিংবা ইনসেনটিভের হার সামান্য) রপ্তানি করে, আলোচ্য পণ্য হিসেবে দেখিয়ে দিচ্ছে। মুড়িতে নগদ সহায়তা রয়েছে। কিন্তু কন্টেইনারে হয়তো অর্ধেক মুড়ি আর অর্ধেক অন্য পণ্য। কিন্তু ঘোষণা দিচ্ছে মুড়ি। এছাড়া দেখা গেল, তিন মেট্রিকটন পণ্য পাঁচ টন হিসেবে ঘোষণা দিচ্ছে। অথচ এমন সময়ে এসে বিল অব এক্সপোর্ট দাখিল করে, তখন তা পরীক্ষা করতে গেলে এসব রপ্তানিকারকরা পণ্য আটকে দিচ্ছে, বা দেরি করছে বলে শুল্ক বিভাগের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলে। অন্যদিকে আইন অনুযায়ী, আমরা (শুল্ক কর্মকর্তারা) ২ শতাংশের বেশি পণ্য পরীক্ষা করতে পারি না। তিনি বলেন, একই ঘটনা এর আগে ঢাকা কাস্টমস হাউজেও ধরা পড়েছে। চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউজ কর্তৃপক্ষের আদেশে বলা হয়, সম্প্রতি দেখা যাচ্ছে কিছু অসাধু রপ্তানিকারক বেশকিছু অসত্ পন্থা ব্যবহার করছে নগদ সহায়তার জন্য। এর মধ্যে রয়েছে ভুয়া রপ্তানি দলিল তৈরির মাধ্যমে রপ্তানি দেখাচ্ছে। আবার রপ্তানি দলিলে প্রকৃত ঘোষণার চেয়ে কম পণ্য বা ঘোষণাবহির্ভূত পণ্য দেখায় এবং যে পণ্যের বিপরীতে প্রণোদনার পরিমাণ বেশি সে পণ্যের পরিমাণ বেশি দেখায় এবং যে পণ্যে প্রণোদনা কম ঐ পণ্য প্রকৃত পণ্যের চেয়ে কমিয়ে দেখায়। এ ধরনের অনিয়ম দ্রুত বন্ধ করার পরামর্শ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। সামষ্টিক অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. মুহম্মদ মাহবুব আলী বলেন, দ্রুত প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে না পারলে পুরো প্রণোদনা ব্যবস্থা প্রশ্নের মুখে পড়বে। এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর সক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ দেন তিনি। দেশের অন্যতম রপ্তানিকারক ফতুল্লা গ্রুপের প্রধান ও পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএর পরিচালক ফজলে শামীম এহসান বলেন, এ ধরনের অসাধু ব্যবসায়ীরা অবশ্যই নজরদারির আওতায় আসুক। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থাকে আমরা স্বাগত জানাই। তবে খেয়াল রাখতে হবে, এ জন্য সাধারণ রপ্তানিকারকরা যাতে আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় না পড়েন।




সর্বশেষ সংবাদ

পুরোন সংবাদ খুজুন
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  

সর্বাধিক পঠিত

প্রকাশক: সৈয়দ এমরান আলী রিপন

সম্পাদক: রোমান চৌধুরী

মোবাইলঃ ০১৭১১৯৫৭২৬৩ / 09639298200

অফিস : সৈয়দ মহল, জানুকি সিং রোড,কাউনিয়া,বরিশাল

ই-মেইলঃ barisalpress247@gmail.com

Design & Developed by
  নির্দিষ্ট কোন মার্কা বা প্রার্থী নয়; জনগণ যাকে ভোট দিবেন, তিনিই নির্বাচিত হবেন   করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৯, নতুন আক্রান্ত ১,৬৩৭   ক্ষমতার পাগল বিএনপি : ওবায়দুল কাদের   তিন উপনির্বাচনে নৌকার মাঝি হলেন যারা   বাড়ানো হলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি   বরিশালে নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সভা অনুষ্ঠিত   সাগরে লঘুচাপ, আগামী ৩ দিনে বাড়তে পারে বৃষ্টি   চট্টগ্রামে একদিনে শনাক্ত ১৫৮   ‘সম্মিলিত প্রচেষ্টায় শিশুশ্রম নিরসন সম্ভব’:প্রধানমন্ত্রী   বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস আজ   “উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে শিশুর সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিতের বিকল্প নেই”:রাষ্ট্রপতি   কুষ্টিয়া পৌর এলাকায় কঠোর বিধি নিষেধ   নগরীতে মসজিদে ইমামের বক্তব্যে মুসল্লিদের মাঝে সংঘর্ষ, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান লাঞ্চিত   বরিশালে উপজেলা আ’লীগের উদ্যোগে শেখ হাসিনা’র কারামুক্তি দিবস পালন   দেশে চার মাসে বজ্রপাতে ১৭৭ জনের মৃত্যু   অশ্রু সিক্ত নয়নে সমাজ সেবক বাচ্চু তালুকদারকে শেষ বিদায়   ‘লাথি মেরে স্টাম্প ভাঙলেন সাকিব’ কী ঘটেছিল মাঠে   পাকিস্তানের পাঞ্জাবে টিকা না নিলে বন্ধ হবে ফোনের সিম   ২০ বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত , বাড়ল আবেদনের সময়   গৌরনদীতে সাংবাদিক পিতার মৃত্যুতে বিভিন্য মহলের শোক প্রকাশ
error: কপি করা থেকে বিরত থাকুন !!