শনিবার ৩১শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
ই-পেপার   শনিবার ৩১শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড, মন্ত্রীসভায় অনুমোদিত |
প্রকাশ: ১৩ অক্টোবর, ২০২০, ৩:৩১ অপরাহ্ণ |
অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড, মন্ত্রীসভায় অনুমোদিত |

 

মোহাম্মদ মাহমুদুল হাসান |
ঢাকা |

মন্ত্রিসভা ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে ‘মহিলা ও শিশু নির্যাতন দমন প্রতিরোধ (সংশোধন) অধ্যাদেশ -২০২০’ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে আজ সকালে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়। পরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘মন্ত্রিপরিষদ আজ সর্বসম্মতিক্রমে মহিলা ও শিশু নির্যাতন দমন প্রতিরোধ (সংশোধন) অধ্যাদেশ-২০২০ এ আজীবন সশ্রম কারাদণ্ডের পরিবর্তে ধর্ষণের শাস্তি হিসাবে মৃত্যুর বিধান রাখার জন্য বিদ্যমান আইনে সংশোধনী আনার পক্ষে এই অনুমোদন দিয়েছে।’ প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে এবং মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরা বাংলাদেশ সচিবালয় থেকে ভিডিও কনফারেন্সে এই ভার্চুয়াল বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘গত কিছু দিনের ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে নারী ও শিশু নির্যাতনমূলক অপরাধগুলো কঠোরভাবে দমনের জন্য নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১) উপধারা পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয়। তিনি বলেন, ‘এই উপধারায় বিধান ছিল- যদি কোনো পুরুষ কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করেন, তা হলে তিনি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদ-ে দ-নীয় হবেন এবং এর অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হবেন।’ তিনি বলেন, ‘এটার পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রণালয় থেকে প্রস্তাব আসে নারী বা শিশু ধর্ষণ একটি জঘন্য অপরাধ, সমাজে নারী বা শিশু নির্যাতন কঠোরভাবে দমনের লক্ষ্যে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১) উপধারায় ধর্ষণের অপরাধের জন্য মৃত্যুদণ্ড অথবা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড প্রদানের লক্ষ্যে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন-২০০০ সংশোধন করা প্রয়োজন’।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘যেহেতু বর্তমানে সংসদের অধিবেশন নেই এবং আশু ব্যবস্থা গ্রহণ খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে, সে জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে যদি সন্তোষজনকভাবে প্রতীয়মান হয় তাহলে তিনি সংবিধানের ৯৩(১) প্রদত্ত ক্ষমতাবলে অধ্যাদেশ প্রণয়ন ও জারি করতে পারবেন।’ তিনি বলেন, ‘যেহেতু সংসদ কার্যকর নেই সে জন্য এটা অধ্যাদেশের মাধ্যমে জারি করা হবে। লেজিসলেটিভ বিভাগের ভেটিংয়ের প্রেক্ষিতে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।’
সংশোধিত আইন অনুযায়ী ৯(১) উপধারায় ‘যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ শব্দগুলোর পরিবর্তে ‘মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড’ শব্দগুলো প্রতিস্থাপিত হবে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১ (গ), ২০ (৭) উপধারা সংশোধন করতে হবে জানিয়ে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘ধর্ষণ ছাড়া সাধারণ জখম হলে কম্পাউন্ড করা যাবে। আগের আইনে ১৯৭৪ সালের শিশু আইনের রেফারেন্স ছিল। ২০০৩ সালে শিশু আইন প্রচলন করা হয়। এ বিষয়টি সংশোধন করা হচ্ছে।’ ধর্ষণের সংজ্ঞার পরিবর্তনের বিষয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকে কোনো কথা হয়েছে কিনা- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ডেফিনেশনের বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি।’ ধর্ষণ মামলার বিচার কত দিনের মধ্যে শেষ হবে- এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আগের আইনের ২০(৩) ধারায় আছে, ১৮০ দিনের মধ্যে এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচার হবে। এখানে বিচার পদ্ধতি মেনশন করা আছে। এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘শুধু আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে পরিবর্তন আনা হচ্ছে না। আমাদের আইন মন্ত্রণালয় ও মহিলা বিষয়ক মন্ত্রণালয় অনেকগুলো দেশের আইন পরীরক্ষা করে দেখেছে। আর বর্তমান পরিস্থিতি ও বাস্তবতা সবকিছু মিলেই এটা হয়েছে। শুধু আন্দোলনের জন্য তো বিষয়টি আসেনি। সরকারের মধ্য থেকেও এটার পক্ষে একটা প্রচারণা আসছে। মানুষের অ্যাওয়ারনেসের কারণে হয়তো এটা আসছে, সেটা হতে পারে।’ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করে কতটা লাভ হবে- এ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘যেভাবে প্রমোশন ক্যাম্পেইন হচ্ছে, এটাও তো একটা প্রমোশনের জায়গা। এটা অবশ্যই সাধারণ মানুষের মধ্যে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। যারা ক্রাইম করে তারা অন্তত দুইবার চিন্তা করবে যে, এটাতে তো মৃত্যুদণ্ড আছে। এখন তো আর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড নয়। ১৮০ দিন তো দীর্ঘ সময়ও নয়। ডেফিনেটলি এটার পজিটিভ ইম্প্যাক্ট হবে।’ সচিব আরো বলেন, ‘এই আইনে বলা হয়েছে আরোপিত অর্থদ-কে, প্রয়োজনবোধে, ট্রাইব্যুনাল অপরাধের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তির জন্য ক্ষতিপূরণ হিসেবে গণ্য করতে পারবে এবং অর্থদণ্ড বা ক্ষতিপূরণের অর্থ দণ্ডিত ব্যক্তির নিকট থেকে বা তাহার বিদ্যমান সম্পদ থেকে আদায় করা সম্ভব না হলে, ভবিষ্যতে তিনি যে সম্পদের মালিক বা অধিকারী হবেন সেই সম্পদ থেকে আদায়যোগ্য হবে এবং এইরূপ ক্ষেত্রে উক্ত সম্পদের ওপর অন্যান্য দাবি অপেক্ষা উক্ত অর্থদণ্ড বা ক্ষতিপূরণের দাবি প্রাধান্য পাবে।’ তিনি বলেন, ‘এটা যাতে আরেকটু প্রমিনেন্টলি আসে ট্রায়ালে, সেটা চিন্তা করা হবে।’




এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

পুরোন সংবাদ খুজুন

সর্বাধিক পঠিত

প্রকাশক: সৈয়দ এমরান আলী রিপন

সম্পাদক: রোমান চৌধুরী

মোবাইলঃ ০১৭১১৯৫৭২৬৩ / 09639298200

অফিস : সৈয়দ মহল, জানুকি সিং রোড,কাউনিয়া,বরিশাল

ই-মেইলঃ barisalpress247@gmail.com

Design & Developed by
  বড়াইগ্রামে স্থানীয় সাংসদ সদস্য আঃ কুদ্দুসের ৭৫ তম জন্মদিন পালন   পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) ও জাকের পার্টির ৩১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী   ভালোবাসার এপিঠ ওপিঠ!   রাজশাহীর দুর্গাপুরে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার   গৌরনদীতে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে জশনেজুলুস ও ধর্মীয় আলোচনা   পাবনার আতাইকুলা অধ্যাপক শেখ লুৎফরনেসা স্মৃতি ফুটবলটুর্নামেন্ট উদ্বোধন   নওগাঁর আত্রাইয়ে এক গৃহিণী গ্যাস ট্যাবলেট খেয়ে আত্নহত্যা   ফ্রান্সে মহানবী হযরত মোহাম্মদ (সা.) কে কটাক্ষ ও ব্যঙ্গ চিত্র প্রদর্শনীর প্রতিবাদে আত্রাইয়ে বিশাল তৌহীদী জনতার গণ মিছিল   পাবনার ভাংগুড়ায় খানমরিচ ইউনিয়ন শাখার ৭ নং ওয়ার্ডের পুকুরপাড় চৌরাস্তায় এক কর্মীসভা অনুষ্টিত।   উজিপুর উপজেলা বিএনপির সিনিয় সহ সভাপতি মরহুম হক বালীর শোক সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত।   লালপুরে মাদক ও বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টিতে দিন ব্যাপী খেলাধুলা   সাবেক সংসাদ সদস্য এম জহির উদ্দিন স্বপনের সুস্থতা কামনা করে গৌরনদীতে দোয়া ও মোনাজাত   পাবনার ভাংগুড়ায় পুরাতন মোটরসাইকেল ক্রয়বিক্রয় হাট উদ্ভোধন হয়েছে ।   মহানবীর ব্যঙ্গচিত্রের প্রতিবাদে জয়পুরহাটে বিক্ষোভ   ফ্রান্সে রাসুল (স) এর ব্যঙ্গ চিত্র প্রদর্শনীর প্রতিবাদে রাজশাহীতে বিক্ষোভ   ফুল সজ্জিত গাড়িতে অবসরে যাওয়া এটিএসআইকে বিদায় দিল রাজশাহী জেলা পুলিশ   রাজশাহীতে করোনায় ১ জনের মৃত্যু, বিভাগে ১৯ জন শনাক্ত   পৌরসভার মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেলের পাঁচ বছরের সাফল্য ও ব্যর্থতার আলোচনা সভা অনুষ্টিত   উজিরপুরে চেয়ারম্যান ইউসুফ হাওলাদারের আশু রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া   দূর্ঘটনা কবলিত ব্যবসায়ীর খোয়া যাওয়া ৫০ হাজার টাকা উদ্ধার করে ফেরত দিলেন গৌরনদী হাইওয়ে থানার ওসি