সোমবার ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
ই-পেপার   সোমবার ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ইতিহাসকে কেউ মুছতে পারে না, সেটা আজকে প্রমাণিত সত্য | প্রধানমন্ত্রী
প্রকাশ: ২৬ আগস্ট, ২০২০, ৪:৫৪ অপরাহ্ণ |
অনলাইন সংস্করণ

ইতিহাসকে কেউ মুছতে পারে না, সেটা আজকে প্রমাণিত সত্য | প্রধানমন্ত্রী
মোহাম্মদ মাহমুদুল হাসান | ঢাকা | প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘১৯৭৫’র ১৫ আগস্ট যে পরাজিত শক্তির উত্থান হয়েছিল তারা আমাদের বিজয়কে নসাৎ করতে চেয়েছিল। আমি মনে করি এখন সেই সুযোগ নেই। ইতিহাস তার আপন গতিতে চলে। ইতিহাসকে কেউ মুছতে পারে না, সেটা আজকে প্রমাণিত সত্য।’ বুধবার (২৬ আগস্ট) সকালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি আয়োজিত ৭ জুন ঐতিহাসিক ৬-দফা দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠিত অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে সেগুনবাগিচার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তন ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন। স্বাধীনতা সংগ্রামের আন্দোলনে ছয় দফা আন্দোলনের ভূমিকা ও প্রেক্ষাপটের কথা তুলে ধরেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, এই ছয় দফা দাবি দেবার পর তখন তাকে গ্রেফতার করা হয় তখন আবার পশ্চিম পাকিস্তানের কিছু নেতা আর আমাদের দেশে সবব সময় একটা দালাল শ্রেণী পাওয়া যায়। তারা তাদের সাথে হাত মিলাল। তারা আবার এখানে ছয় দফার বদলে আট দফা নিয়ে এসে হাজির। তখন আব্বা জেলে। আমার মা এ ব্যাপারে খুবে সচেতন ছিলেন। আমাদের অনেক বড় বড় নেতারা আট দফার দিকে ঝুঁকে গিয়েছিলেন। তা সত্যিই খুব লজ্জাজনক। কিন্তু আমার মা ফজিলাতুন্নেছা অত্যন্ত দৃঢ়চেতা ছিলেন। যে সভাটা যখন আমাদের ৩২ নম্বরের বাড়িতে; কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভা; সেখানে ছয় দফা না আট দফা; এটা নিয়ে তুমুল বিতর্ক। সেখানে সিদ্ধান্ত হল আমরা একমাত্র ছয় দফাই মানবো।এখানে আট দফার দরকার নেই। ঠিক এভাবে অনেক ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়েই কিন্তু আমাদের এগুতে হয়েছিল। তিনি আরও বলেন, ‘এরপর যখন দেখল এভাবে কোনকিছু হচ্ছে না, যখন আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা দিয়ে জাতির পিতাকে ফাঁসি দেয়ার চেষ্টা করা হল। তখন তুমুল আন্দোলন গড়ে তোলা হল। আমাদের ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হলো ঢাকা বিশ্¦বিদ্যালয়ে। আমিও ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের তখন ছাত্রী। কামালও তখন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে যোগদান করেছে। সেখানে আন্দোলন হয়, সংগ্রাম হয়। সারাদেশের মানুষ কিন্তু এই ছয় দফাকে লুফে নিয়েছিল। কোন একটা দাবি এতো অল্প সময়ের মধ্যে মানুষ এমনভাবে গ্রহণ করতে পারে, তাতে অকাতরে বুকের রক্ত ঢেলে দিতে পারে। এটা সত্যি একটা অনন্য অবস্থা। একমাত্র বাংলাদেশেই এটা সম্ভব হয়েছিল। যেটা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে। তিনি কারাগারে ছিলেন একথা সত্য। কিন্তু কারাগারে যখন আমরা সাক্ষাত দিতে যেতাম তখন কি কি করতে হবে, না করতে হবে, তিনি সেটার বিস্তারিত মাকে বলে দিতেন। মা এসে তখন সেটা পৌঁছে দিতেন আমাদের পার্টির কাছে এবং ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের কাছে। শেখ হাসিনা বলেন, তাদের লক্ষ্যই ছিল যে করেই হোক;এই মামলায় রায় দিয়ে তার ফাঁসি দিয়ে হত্যা করা। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ তখন এমনভাবে গণজাগরণ সৃষ্টি করল, আন্দোলন শুরু করলো বরং বাধ্য হয়েছিল আইয়ুব খান এই আন্দোলনের মুখে ২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ সালে মামলা প্রত্যাহার করতে। ২২ ফেব্রুয়ারি তাকে মুক্তি দেয়। মুক্তি দেয়াটাও খুব অদ্ভুদ ছিল। ঠিক দুপুরের আগে ১১টা থেকে ১২টার মধ্যে একটা মিলিটারি গাড়িতে করে বঙ্গবন্ধুকে সোজা ৩২ নম্বরের বাড়িতে নামিয়ে দিয়ে কয়েক মূহুর্তে পালিয়ে চলে যায়। ওরা তখন মানুষের ভয়ে আতঙ্কগ্রস্থ ছিল। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে খবর পেয়ে বাড়ি চলে এসে দেখি, লোকে লোকারণ্য। এভাবেই কিন্তু ছয় দফার আন্দোলন এক দফায় পরিণত হয়। ‘ছয় দফার উপর ভিত্তি করেই কিন্তু আমাদের মুক্তি সংগ্রাম মুক্তিযুদ্ধ এবং আমাদের বিজয় অর্জন। সেইদিক থেকে ছয় দফা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ’ বলে অভিহিত করেন প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনা বলেন, ইতিহাস আসলে মুছে ফেলাই হয়েছিল। ৭৫’র ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হত্যার পর। আমাদের অনেকেই জানতেই পারেনি, ৭ই মার্চের ভাষণও নিষিদ্ধ ছিল। এই ভাষণও কখনো কেউ শুনতে পারত না, এটা বাজাতে যেয়ে আমাদের আওয়ামী লীগের বহু নেতোকর্মীকে জীবন দিতে হয়েছে। আস্তে আস্তে মানুষ সব জানতে পারছে। আমার খুব ভাল লেগেছে যে, আমাদের নতুন প্রজন্ম তাদের যে আগ্রহটা তারা চমৎকারভাবে উপস্থাপন করেছেন সেজন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। শেখ হাসিনা আরও বলেন, আমি দুঃখিত অনেক লম্বা বক্তব্য দিলাম। তবে আমার মনে হয় যে, আমি যে কথাগুলি জানি আমি কথাগুলি বলে যাওয়া দরকার। হয়ত অনেকেই তো একথা জানবে না যে, কি কি ঘটনা; এখন আর কেউ নেই, ৭৫’এ নির্মমভাবে হত্যা করেছে। ‘জাতির পিতা আমাদের স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন। ৭৫’র ১৫ আগস্ট আমাদের অগ্রযাত্রাকে স্তিমিত করেছিল। আজকে জাতিার পিতা যে পথ তিনি রেখে গেছেন, সেই পথ ধরেই আমরা বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। এই বাংলাদেশকে যদি আমরা ক্ষুধামুক্ত দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়তে চাই অবশ্যই ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে জাতির পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে এবং আমাদের এই বিজয়কে সংগঠিত রাখতে হবে’। ‘৭৫’র ১৫ আগস্ট যে পরাজিত শক্তির উত্থান হয়েছিল তারা আমাদের বিজয়কে নসাৎ করতে চেয়েছিল। আমি মনে এখন সেই সুযোগ নেই। ইতিহাস তার আপন গতিতে চলে। ইতিহাসকে কেউ মুছতে পারে না, সেটা আজকে প্রমাণিত সত্য।’ আজকে শুধু বাংলাদেশ না, সমগ্র বিশ^ব্যাপী জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের উদ্যোগ নিয়েছিল। এমনকি জাতিসংঘ উদ্যোগ নিয়েছে। করোনা ভাইরাসের কারণে হয়নি। তবে জাতিসংঘ ইতোমধ্যে একটা স্টাম্প রিলিজ করেছে। এছাড়া বিশ্বনেতৃবৃন্দ এব্যাপারে বিভিন্ন দেশে অনেক কর্মসূচি নিয়েছে বলেও অভিহিত করেন প্রধানমন্ত্রী। তার আগে ‘শতবর্ষে শত পুরস্কার’ শীর্ষক এক অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার ও সনদ প্রদান করা হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন ও ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস উপলক্ষে অনলাইন প্ল্যাটফর্মে এই কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি।




এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

পুরোন সংবাদ খুজুন
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১

সর্বাধিক পঠিত

প্রকাশক: সৈয়দ এমরান আলী রিপন

সম্পাদক: রোমান চৌধুরী

মোবাইলঃ ০১৭১১৯৫৭২৬৩ / 09639298200

অফিস : সৈয়দ মহল, জানুকি সিং রোড,কাউনিয়া,বরিশাল

ই-মেইলঃ barisalpress247@gmail.com

Design & Developed by
  গৌরনদীর ২নং ওয়ার্ডে নৌকার উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত   মেহেন্দিগঞ্জে আফসার হত্যার প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ মিছিল   বানারীপাড়ায় মাদক ব্যবসায়ী ১৮০ পিস ইয়াবাসহ আটক   বিএম কলেজের দেয়াল ঘেঁষে ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুৎ সংযোগ ফুটপাতের দোকানে।   গৌরনদী হাইওয়ে থানার উদ্যোগে অসহায় দুস্থ ও ছিন্নমূলদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ   ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশের মোটরসাইকেলের সাঁড়াশি অভিযান অব্যাহত   বীর মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার রাঢ়ীকে রাষ্টীয় মর্যদায় দাফন   নওগাঁর পোরশায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিবন্ধি শির্ক্ষাথীদের মাঝে কম্বল বিতরন   রাজশাহী রেঞ্জে ট্রাফিক জরিমানায় ই-ট্রাফিকিংয়ের যাত্রা শুরু   বাউফলে দানবাকৃতির অবৈধ ট্রলির বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত   রাসিকের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা স্থায়ী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত   হিলিতে নৌকার প্রচারণায় গণয়োয়ার সৃষ্টি হয়েছে   রাজশাহী বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত দ্বিগুণ, মৃত্যু ১   রাজশাহীতে অপহৃত ভিকটিম উদ্ধার, অপহরণকারী আটক   তালতলীতে গরু মোটাতাজাকরণ বিষয়ক কর্মশালা   দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে এশিয়ান টিভির ৮ম বর্ষপূর্তি পালিত   কলাপাড়া নারী উন্নয়ন ফোরাম’র উদ্যোগে শীত বস্ত্র বিতরণ।।   কলাপাড়ায় আনন্দ টিভির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এর মৃত্যুবার্ষিকী পালিত ॥   ডাকাত সন্দেহে পিটিয়ে হত্যা সীতাকুণ্ডে   রোহিত হত্যায় গ্রেপ্তার দু’জন
error: কপি করা থেকে বিরত থাকুন !!